দেবী: মিসির আলী প্রথমবার, ধীর গতির ভাল বাংলা সিনেমা।

দেবী পোষ্টার

গল্পটা ভাল, গতিটা কিছুটা কম তবে এমন গল্পের ক্ষেত্রে এমন গতি অতীব জরুরী এই অতিমানবীয় গল্পের মাঝে যে বার্তা দিতে চেয়েছেন তা অনেক বড় একটা মানবিক ব্যাপার যা আমরা বলতেও দ্বিধা করি। জয়া আহসানের সিনেমা আমার দেখা হয়না কিন্তু গল্পটা তুলে ধরার জন্য তিনি যা যা করেছেন অসাধারন। আমি তার রূপের প্রশংসা করছিনা, ও রূপের জোরে হয়তোবা আমাদের মত অর্বাচীনের দেশে সিনেমা পাওয়া যায়, বাহবা পাওয়া যায়। কিন্তু তার সবচেয়ে বড় যে গুন তাঁর অভিনয়, এমন নেশা ধরিয়ে দেয় সহজে কাঁটিয়ে উঠা সহজ নয়।

স্ক্রিপ্টটা অনেক ভাল হয়েছে, নীলুর ডায়ালগ-গুলো এত নিষ্পাপ যে এমন শক্তপোক্ত ডায়ালগ চোখে পড়ে না সাধারনত আর বাংলা ছবিতে-তো না-ই!

আমি হুমায়ুনের ভক্ত নই একইসাথে সমালোচনা এবং প্রশংসা দুই-ই চলে। দেবী পড়ার সৌভাগ্য হয়নি আমার এটাকে সৌভাগ্য নাকি দূর্ভাগ্য বলব সে নিয়ে আমার নিজেরই অনেক প্রশ্ন আছে। তবে এতটুকু বলতে পারি নিজের চিত্রায়নের নতুনরূপে আবিষ্কারের হাহাকার আমার নেই!


মিসির আলির সাথে আমার পরিচয় হয়নি তবে চঞ্চলের চিত্রায়ন অসাধারন হয়েছে। আমি জানি না আমি কতটুকু এক্যুরেট তবে যারা দেবী: মিসির আলী প্রথমবার দেখেছেন এবং স্যার ফাহিম সিকদারকে চিনেন তারা মিসির আলীর জিবন্ত অবতার খুঁজে পেতে স্যারের সাথে দেখা করুন বাঁচন ভঙ্গি থেকে শুরু করে সব! যদিও চুলটা এত পাকেনি তবে অদূর ভবিষ্যতে এমন রূপ ধারন করবেন তা ভবিষ্যৎবানী করে রাখা যায়।
দেখে নিতে পারেন, ধীর গতির ভাল বাংলা সিনেমা, দেবী: মিসির আলী প্রথমবার।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।